Home | About Us | Porshi Team | Porshi Patrons | Event Announcement | Contact Us
হোমপেজ পুরনো সংখ্যা: সূচীপত্র  প্রযুক্তি বন্ধন  ||  ৯ম বর্ষ ৩য় সংখ্যা আষাঢ় ১৪১৬ •  9th  year  3rd  issue  Jun-Jul  2009 পুরনো সংখ্যা
হাবল টেলিস্কোপ মেরামত Download PDF version
 

হাবল টেলিস্কোপ মেরামত

 

 

 

১২ই মেঃ ফ্লোরিডা থেকে তোলা এই ছবিতে হাবল টেলিস্কোপকে

ধরতে সূর্যের বুকে যেন ভেসে চলেছে সাটল আটলান্টিস।

 

মে মাসের মাঝামাঝি পৃথিবীর কক্ষপথে স্থাপিত হাবল টেলিস্কোপকে আর এক ধাপ আধুনিকীকরণ করা হল। এই নিয়ে চারবার স্পেস সাটল হাবলকে সার্ভিসিং করল। স্পেস সাটল আটলান্টিসের নভোচারীরা প্রথমে হাবলকে ক্রেনের সাহায্যে সাটলের কার্গো বে-তে স্থাপন করেন। তারপর তারা মোট পাঁচবার সাটলের বাইরে গিয়ে, অন্য অনেক কিছুর মধ্যে, টেলিস্কোপে নতুন ক্যামরা, স্পেকট্রোগ্রাফ, জাইরোস্কোপ ও নিকেল-হাইড্রোজেন ব্যাটারী লাগান। এই সার্ভিসিং এর ফলে হাবল স্পেস টেলিস্কোপ অন্ততঃ ২০১৪ পর্যন্ত কাজ করবে।

 

 

১৪ই মেঃ নভোচারী এন্ড্রু ফিস্টেল সাটলের রোবট হাতে চড়ে হাবল

টেলিস্কোপের দিকে এগোচ্ছেন। ওপরে পৃথিবী।

 

হাবল গত আঠারো বছর ধরে আমাদের মহাবিশ্বের সব চমৎকার ছবি তুলেছে। নি:সন্দেহে চাঁদে মানুষ পাঠানোর পর হাবল টেলিস্কোপের সাফল্য NASAর জন্য বড় কৃতিত্ব। এ পর্যন্ত হাবল প্রজেক্টের পেছনে খরচ হয়েছে অন্ততঃ ৬ বিলিয়ন ডলার। পৃথিবীর বাইরে মহাবিশ্ব সম্পর্কে জ্ঞান আহরণের জন্য এই মূল্যটা কি গ্রহণীয়? নি:সন্দেহে হাবল টেলিস্কোপ আমাদের মহাবিশ্ব সম্পর্কে যে সব নতুন তথ্য দিয়েছে তা মানব জ্ঞান-ভান্ডারে স্থায়ীভাবে জমা থাকবে, ভবিষ্যতের টেলিস্কোপেরা নতুন ও অগ্রগামী প্রযুক্তি দিয়ে সেই জ্ঞান-ভান্ডারকে সমৃদ্ধ করবে। তদুপরি হাবল সাধারণ লোকের সঙ্গে মহাবিশ্বের বিশালতার পরিচিতি ঘটিয়েছে। নিউ ইয়র্ক টাইমস তাই হাবলকে জনগণের টেলিস্কোপ নামে আখ্যায়িত করেছে। হাবল এমন সব চমকপ্রদ ছবি তুলেছে যা কিনা আমাদের মনকে বিহ্বল করে, সেই বিহ্ববলতার জন্য আমাদেরকে যে মূল্য দিতে হচ্ছে তা যে কোন যুদ্ধের খরচের তুলনায় খুবই সামান্য।

 

 

১৯শে মেঃ সব কাজ শেষ হলে হাবলকে ছেড়ে দেয়া হল আবার পৃথিবীর কক্ষপথে।

 

হাবলের অপূর্ব সব ছবির মধ্যে কয়েকটিকে আমরা পড়শীর এই সংখ্যায় ছাপালাম।

 

 

পৃথিবী থেকে প্রায় ৮,০০০ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত পিপীলিকা নীহারিকা।

বিজ্ঞানীরা মনে করেন দুটি তারার সম্মিলিত শক্তি এই নীহারিকার শক্তি জোগাচ্ছে।

 

 

পৃথিবী থেকে প্রায় ৩,০০০ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত এস্কিমো নেবুলা যাকে দেখে মনে হয় মাথায় হুড পড়া এস্কিমো গোষ্ঠীর মানুষের মুখ। একটা তারা তার শেষ জীবনে এসে তার গ্যাস মহাশূন্যে ছড়িয়ে দিচ্ছে যা কিনা এই নিহারীকা সৃষ্টি করেছে। আজ থেকে ৫ বিলিয়ন (৫০০ কোটি) বছর পরে সূর্যেরও এই অবস্থা হবে।

 

 

 

ট্রিফিড বা ত্রিফলা নিহারীকা আমাদের কাছ থেকে ৯,০০০ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত।

এই ঘন নিহারীকায় নতুন তারারা জন্মগ্রহণ করছে।

 

সাটল আটলান্টিসের হাবল মেরামতের কিছু চমৎকার ছবি দেখুন নিউ ইয়র্ক টাইমসেঃ

http://www.nytimes.com/slideshow/2009/05/20/science/052109HUBBLE_index.html?ref=science

 

মন্তব্য:
এ সপ্তাহের জরীপ

প্রেসিডেন্ট ওবামা ঠিকমত দেশ চালা্চ্ছেন।

 
Code of Conduct | Advertisement Policy | Press Release | Hard Copy Archive
© Copyright 2001 Porshi. All rights reserved.