Home | About Us | Porshi Team | Porshi Patrons | Event Announcement | Contact Us
হোমপেজ পুরনো সংখ্যা: সূচীপত্র  মূল রচনাবলীঃ  ||  ৯ম বর্ষ ৩য় সংখ্যা আষাঢ় ১৪১৬ •  9th  year  3rd  issue  Jun-Jul  2009 পুরনো সংখ্যা
উত্তর আমেরিকা বাংলাদেশ সম্মেলন ২০০৯ Download PDF version
 

বঙ্গ সম্মেলন ও ফোবানা সম্মেলন

উত্তর আমেরিকা বাংলাদেশ সম্মেলন ২০০৯

পড়শী প্রতিবেদ

যেকোন অনুষ্ঠান বা আয়োজনের মাধ্যমে দেশীয় আমেজ উপভোগ, স্মৃতিচার, বন্ধু-স্বজনের সাথে দেখা-সাক্ষাত, পুরনো ও নতুন গান, নাচ ও অভিনয়ের উপস্থাপনায় একটু নষ্টালজিক হওয়া প্রবাস জীবনের একটি অন্যতম আকর্ষ। প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্যে এসব আকর্ষণের নিবেদন নিয়ে আসে বার্ষিক বাংলাদেশ সম্মেলন। উত্তর আমেরিকায় প্রতিবছর যে বাংলাদেশ সম্মেলন হয় তার ইতিহাস শুরু হয়েছে অনেক বছর আগে। তখন প্রবাসীদের সংখ্যা নিশ্চই আজকের তুলনায় ছিল অনেক কম। আর বর্তমানের মত প্রথম দিকে প্রবাসীরা সারা উত্তর আমেরিকায় এতটা ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল বলেও মনে হয়না। অথচ এখন বাংলাদেশী নেই উত্তর আমেরিকায় এমন কোন শহর খুঁজে বের করাই হয়ত কঠিন। সংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে প্রতি বছরের উত্তর আমেরিকার বাংলাদেশ সম্মেলনও একেকবার একেকটি শহর ঘুরে ঘুরে উদযাপিত হয়ছে। এর মাঝে ইতিহাস ঘাটলে প্রথমে একটি তারপর একের অধিক বার্ষিক সম্মেলনের নজির পাওয়া যায়। উত্তর আমেরিকার বাংলাদেশ সম্মেলনের ইতিহাস পর্যালোচনা বা কোনটি আদি ও কোনটি নয় এ বিষয়ে তর্ক পড়শীর এ প্রতিবেদনর অংশ নয়। পাঠকদের কাছে এ বছরের উত্তর আমেরিকার বাংলাদেশ সম্মেলনের সময়, মূল বিষয়, কর্মসূচি ও আকর্ষগুলো তুলে ধরাই এ প্রতিবেদনের প্রয়াস। এ উদ্দেশ্যে আমরা GOOGLE SEARCH এবং লোক মুখে শোনা খবরের সূত্র ধরে দু’টি বাংলাদেশ সম্মেলনের খোঁজ পেয়েছি। একটি হিউষ্টনে অনুষ্ঠিতব্য FOBANA 2009: ২৩তম উত্তর আমেরিকার বাংলাদেশ সম্মেলন (www.fobana2009.com ); আরেকটি ওয়াশিংটন ডি,সিতে অনুষ্ঠিতব্য FOBANA 2009:  ২৩তম উত্তর আমেরিকা বাংলাদেশ সম্মেলন, ওয়াশিংটন ডি,সি,ইউ এস এ (www.fobana2009.net )।

প্রতিবেদনের খাতিরে আমরা এ বছর অনুষ্ঠিতব্য উত্তর আমেরিকার বাংলাদেশ সম্মেলনের উদ্যোক্তাদের সাথে যোগাযোগ করি। সম্মেলনের আহবায়ক ও তার দল আমাদের আহবানে সারা দিয়ে সম্মেলন বিষয়ে তাদের বর্ণনা পাঠিয়েছেন। নিম্নে আহবায়ক ও উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে পাওয়া ২০০৯ সালে উত্তর আমেরিকার বাংলাদেশ সম্মেলনের বর্ণনা দেওয়া গেল।

 

হিউষ্টনের রিপোর্টঃ

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৪র্থ বৃহত্তম বন্দর ও বাণিজ্য নগরী হিউষ্টনের জর্জ আর ব্রাউন কনভেনশন সেন্টারে ফোবানার ২৩তম বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জুলাইয়ের ২রা থেকে ৪ঠা তারিখ পর্যন্ত। উত্তর আমেরিকায় বসবাসরত বাংলাদেশীদের এই মিলন মেলায় প্রতি বছরের মত এবারেও থাকছে বাংলাদেশের গুণী শিল্পী ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব। উত্তর আমেরিকার বিভিন্ন শহর থেকে চল্লিশেরও বেশী সংগঠনের সাংস্কৃতিক উপস্থাপনা তিন দিন ব্যাপী এই সম্মেলনের একটি আকর্ষ

এবারের ফোবানা সম্মেলন হিউষ্টনের বাংলাদেশীদের জন্য সর্বপ্রথম একটি জাতীয় সম্মেলন, আমরা এই মহাদেশীয় সম্মেলনের সুযোগে বাংলাদেশকে উপস্থাপন করতে চাই তার যোগ্য প্রগতিশীল এবং গৌরবের আলোকে। এবারের মহাসম্মেলনের প্রধান অতিথি দেশ বরেণ্য, সাহিত্যিক ও মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর আনিসুজ্জামান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে হিউষ্টন শহরের মেয়র বিল হোয়াইট ছাড়াও উপস্থিত থাকবেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস সদস্যা শীলা জ্যাকসন লী, হ্যারিস কাউন্টির প্রধান বিচারক এড এমিট এবং আরো অনেকে। এ বছর সম্মেলনের আয়োজক বাংলাদেশ এসোসিয়েশন, হিউষ্টন। সম্মেলনের আহবায়ক আফজাল আহমেদ ও মেম্বার সেক্রেটারী হলেন আজাদুল হক। সম্মেলন হোষ্ট কমিটি ও অনুষ্ঠানমালার বিষদ বর্ণনা পাওয়া যাবে তাদের ওয়েব সাইটে - www.fobana2009.com .

ঢাকার মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘর গত প্রায় দুই দশক ধরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসকে প্রতিনিধিত্ব করছে গৌরবের সাথে। আমরা সত্যিই গর্বিত যে ফোবানার এই সম্মেলন উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘর প্রথমবারের মত উত্তর আমেরিকায় আসছে একটি ভ্রাম্যমান প্রদর্শনী নিয়ে। মুক্তিযুদ্ধ  যাদুঘরের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা জনাব আক্কু চৌধুরী যাদুঘরের প্রতিনিধিদের নেতৃত্ব দেবেন।

হত্যা বিরোধী সর্বজনীন ঘোষণাপত্র উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বীশ্রেষ্ঠদের পরিবারের প্রতিনিধিত্ব করবেন বীর শ্রেষ্ঠ মতিউর রহমানের স্ত্রী মিলি রহমান। এই অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশের বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং চ্যানেল আইয়ের মুক্তিযুদ্ধ প্রতিদিন অনুষ্ঠানের উপস্থাপক প্রখ্যাত নাট্যকার নাসিরউদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু।

আমরা মনে করি গত ৩৮ বছরে বাংলাদেশের উন্নয়নে সবচেয়ে প্রশংসনীয় অবদান রেখেছে আমাদের দেশের ব্যক্তিগত ও বেসরকারী উদ্যোগ। বাংলাদেশে ব্যবসায়িক উন্নয়নে প্রবাসী বাংলাদেশীদের অবদান এবং বাংলাদেশে ও উত্তর আমেরিকায় ব্যবসায়িক সংযোগ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে এবছরের ফোবানায় আমরা আয়োজন করেছি ব্যবসায়িক ফোরাম। এবারের ফোবানা সম্মেলনের সেমিনারসমূহের মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্য, চিকিৎসা, শিক্ষা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, অর্থনীতি, কৃষি ও পরিবেশ। বাংলাদেশের প্রখ্যাত কবি রফিক আজাদ এবং ‘মা’ গ্রন্থের রচিয়তা সাহিত্যিক আনিসুল হক সহ আরো অনেক কবি ও সাহিত্যিক অংশগ্রহ করবেন সাহিত্য আসরে।

আমাদের জাতীয় উন্নয়ন নির্ভর করবে নতুন প্রজন্মের অবদানের উপর। তাই আমরা বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করছি নতুন প্রজন্মের অংশগ্রহণের উপর। শিশু-কিশোরদের চিত্রাংকন, রচনা প্রতিযোগিতা ও ট্যালেন্ট সার্চ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই অংশগ্রহকে উৎসাহিত করা হচ্ছে।

ফোবানার ২৩তম বার্ষিক সম্মেলন হউক এই মহাদেশীয় সংগঠনের এক নতুন দিক নির্দেশনার সূচনার সম্মেলন – এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

(আহ্বায়কের দফতর থেকে পায়া রিপোর্ট-এর ভিত্তিতে।)

 

ওয়াশিংটন ডি, সির রিপোর্ট:

এবছর ওয়াশিংটন ডি, সিতে জুলাই ২-৪ তারিখে ২৩তম উত্তর আমেরিকা বাংলাদেশ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সম্মেলনের  প্রধান ফোকাস হলো প্রবাসে বড় হয়ে ওঠা নতুন প্রজন্ম। নতুন প্রজন্ম কিভাবে বাংলাদেশের কৃষ্টি ও সংস্কৃতিকে তাদের জীবনে ও প্রবাসের সমাজে ধরে রাখবে ও প্রয়োজনে তাদের শিক্ষা, যোগ্যতা ও ভালবাসা দিয়ে বাংলাদেশের প্রতি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেবে সেটাই এ সম্মেলনের মূল চেতনা। এই চেতনা ও লক্ষ্যকে কেন্দ্র করেই উত্তর আমেরিকার সব বাংলাদেশীদের একতার মাধ্যমে পৃথিবীর সন্ত্রাসবাদের (গ্লোবাল টেরোরিজম) বিরুদ্ধে সোচ্চার হবে এ সম্মেলন। সন্ত্রাসবাদ শুধু উত্তর আমেরিকা বা বাংলাদেশ নয়, আজকের পৃথিবীতে সন্ত্রাসবাদ প্রায় সকল দেশেরই একটি সামাজিক অসুখ। প্রবাসী বাংলাদেশীরা উত্তর আমেরিকাসহ বিশ্ব পরিবারের সাথে এক হয়ে সন্ত্রাসবাদবিরোধী আন্দোলনের কাজ করে যাচ্ছে। তাদের অতীত ও বর্তমানের সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রমের মূল্যায়ন হবে সম্মেলনের একটি প্রধান বিষয়। সন্ত্রাসবাদ বিরোধী আন্দোলনে বাংলাদেশীদের ভবিষ্যত পথ নির্দেশনায় সহায়তা করবে কার্যক্রমের পর্যালোচনা ও মূল্যায়ন।

প্রতি বছর তিন থেকে পাঁচ হাজার প্রবাসী বাংলাদেশী সারা উত্তর আমেরিকা থেকে বার্ষিক ফেডারেশন অব বাংলাদেশী এসোসিয়েশস ইন নর্থ আমেরিকা (FOBANA) সম্মেলনে অংশ নেয়। সম্মেলন তাদের জন্যে উৎসব মুখর পরিবেশে পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধব, সমমনা মানুষদের সাথে দেখা-সাক্ষাত ও নতুনদের সাথে যোগাযোগের সুযোগ করে দেয়। এখানে তারা উপভোগ করেন দেশীয় সংস্কৃতি ও আমেজ। সম্মেলনে যেমন থাকে স্বনামধন্য দেশীয় শিল্পীদের উপস্থাপনা, তেমনি থাকে স্বাস্থ্য, শিশু, সাহিত্য ও বাণিজ্য বিষয়ক সেমিনার ও আলোচনা। প্রবাস জীবনের ভাল-মন্দ আলোচনা ও ভবিষ্যত উন্নয়নের পরিকল্পনার জন্যেও সম্মেলন প্রবাসীদের একটি মিলনস্থল; যেখানে তারা একে অপরের সাথে জ্ঞান, অভিজ্ঞতা দর্শনের আদান-প্রদান করতে পারেন।

ডি,সিতে এ বছর অনুষ্ঠিত তিন দিনব্যাপী ফেডারেশন অব বাংলাদেশী এসোসিয়েশস ইন নর্থ আমেরিকা (FOBANA) সম্মেলনের আয়োজন করছে আমেরিকা-বাংলাদেশ বিজনেস এসোসিয়েশন (ABBA) । কনফারেন্সের আহবায়ক (কনভেনর) সাদেক খান ও মেম্বার সেক্রেটারী জি (Zi) রাসেল তাদের বক্তব্যে সম্মেলনকে উত্তর আমেরিকার ও প্রবাসী বাংলাদেশীদের সংস্কৃতির একটি যোগসূত্র বলে অভিহিত করেন। সম্মেলনের শেষ দিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা দিবস উদযাপন বাংলাদেশী আমেরিকানদের এদেশের মূলধারার সংস্কৃতিতে একাত্মতা প্রকাশের প্রতীক। এ সম্মেলনের হোষ্ট কমিটি ও কর্মসূচী বিষয়ে জানতে পারবেন www.fobana2009.net  অন্তর্জালে।

প্রেস রিলিজ, ফোবানা ২০০৯ ডি,সি, ইউ এস এর পক্ষ থেকে মাহফুজ রহমান (কালচারাল সেক্রেটারী)(ছবিগুরো নেয়া হয়েছে অন্তর্জাল থেকে।)

 

_______________________

পড়শী প্রতিবেদক

২৯ মে, ২০০৯

 

মন্তব্য:
এ সপ্তাহের জরীপ

প্রেসিডেন্ট ওবামা ঠিকমত দেশ চালা্চ্ছেন।

 
Code of Conduct | Advertisement Policy | Press Release | Hard Copy Archive
© Copyright 2001 Porshi. All rights reserved.