Home | About Us | Porshi Team | Porshi Patrons | Event Announcement | Contact Us
হোমপেজ পুরনো সংখ্যা: সূচীপত্র  মূল রচনাবলীঃ  ||  ১০ম বর্ষ ১ম সংখ্যা বৈশাখ ১৪১৭ •  10th  year  1st  issue  Apr - May  2010 পুরনো সংখ্যা
অন্তর্জালে বছর পার Download PDF version
 

  ন্তর্জালে বছর পার

   মাহমুদুল হাসান

 

দেখতে দেখতে এক বছর শেষ হয়ে গেল। অন্তর্জালে এক বছর- অনলাইন পড়শীর একবছর। ২০০৯ এর এপ্রিল মাসে যাত্রা শুরু হয়েছিল অনলাইন পড়শীর। সময়ের বিচারে একটা বছর খুব বেশী সময় নয়। তারপরও নিয়মিত মাসিক প্রকাশনার জন্য প্রথম বছরটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ। তাই এ সন্ধিক্ষণে আমরা ফিরে তাকাবো পড়শীর প্রথম বছরটির দিকে। ভালো-মন্দ,অর্জন-ব্যর্থতার একটা পর্যালোচনা চেষ্টা করব পড়শীর প্রেক্ষাপট থেকে। আরো একটা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার আছে। পড়শীর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট লেখক, পাঠক, সহকর্মী প্রায় সবাই জানেন যে অনলাইন পড়শীর প্রকাশনার আগে পড়শীর আরেকটা "জীবন" ছিল। সেটা ছিল নিয়মিত মাসিক ছাপা পড়শী। স্বাভাবিকভাবেই সেই ছাপা পড়শীর সঙ্গে অনলাইন পড়শীর তুলনাটা এসেই যায়। একে এড়ানো অসম্ভব, উচিতও নয়। তাই এখানে পড়শীর দুই পর্বের একটা তুলনামূলক আলোচনাও এসে যাবে।

অনলাইন পড়শীর প্রকাশনা শুরু ১লা বৈশাখ ১৪১৬ (১৪ই এপ্রিল ২০০৯)। এ সংখ্যাকে আমরা প্রথম বর্ষের প্রথম সংখ্যা না বলে ৯ম বর্ষের প্রথম সংখ্যা বলছি। কার আমাদের পরিকল্পনায় এবং বিচারে অনলাইন পড়শী নতুন প্রকাশনা নয়। বরং সময়ের প্রয়োজনে নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে পড়শী প্রকাশনার মাধ্যম পরিবর্তন করেছে ছাপাখানা থেকে বেরিয়ে অন্তর্জালে ঠাঁই করে নিয়েছে। তাতে কিছু পরিবর্তন তো অবশ্যই এসেছে। কিন্তু পড়শীর যে আঙ্গিক, যে মেজাজ তাকে বজায় রাখতে আমরা সচেষ্ট থেকেছি।

এ প্রসঙ্গে অনলাইন পড়শীর প্রথম সংখ্যায় সম্পাদকীয়টি এখানে তুলে ধরা হলো। অমরা বলেছিলাম জন্মলগ্ন থেকেই পড়শীর ছিলো বিশ্ববাঙালির মুখপত্র' হবার অঙ্গীকার। আমরা আশাবাদ ব্যক্ত করেছিলাম যে অন্তর্জালের সুবাদে ভৌগলিক প্রতিবন্ধকতথাকবে না। ওয়েবলিংকে ক্লিক করে পাঠক পৌঁছে যাবেন পড়শীর ঠিকানায় বিশ্বের যে কোন প্রান্ত থেকে। গত এক বছরে এটা পড়শীর একটা বড় অর্জন অন্তর্জালের কল্যাণে। বাংলাদেশ ও পশ্চিম বঙ্গ থেকে শুরু করে অষ্ট্রেলিয়া, ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্যসহ আমাদের উত্তর আমেরিকা অবধি ছড়িয়ে আছেন পাঠকেরা। পাঠকদের দেয়া অনলাইন মন্তব্য থেকেই আমরা বুঝতে পারছি যে তারা পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পড়শী পড়ছেন।

 

অনলাইনে আমরা প্রতিটি লেখার সঙ্গেই ব্লকের মত পাঠকের মন্তব্য দেবার জায়গা রেখেছি। ফলে কোন লেখা সম্পর্কে পাঠকের মন্তব্য আমরা সহজেই জানার সুযোগ পাচ্ছি। কোন ক্ষেত্রে আকর্ষণী বিষয়ে পাঠকের মন্তব্যের পিঠে আরো মন্তব্য আসছে- ফলে আলোচনায় একটা থ্রেড' তৈরী হচ্ছে কখনো কখনো। এটাও পাঠকদের জন্য (এবং আমাদের জন্য) একটা উপরি পাওনা অন্তর্জালের সুবাদে।

অনলাইনে প্রতিটি লেখা সঙ্গেই আমরা এ্যাক্সেস কাউন্টার রেখেছি। এই কাউন্টার থেকে সঠিক পাঠকসংখ্যা না হলেও একটা ধারনা পাওয় যায় যে কোন ধরনের লেখা পাঠকরা বেশী পড়ছেন। ছাপা পড়শী থেকে পাঠকপ্রিয়তার এই ধরনের তথ্য পাওয়া প্রায় অসম্ভব ছিলো। পাঠক জরীপ থেকে কিছু তথ্য পাওয়া সম্ভব, কিন্তু নিয়মিতভাবে প্রতিটি বিষয়ে এরকম তথ্য পাওয়া অনলাইনের একটি বাড়তি সুবিধা।

অনলাইনের কল্যাণে গত এক বছরে পাঠক বেড়েছে উত্তর আমেরিকার বাইরে। তবে মনে রাখতে হবে এরা অন্তর্জালের (নতুন যুগের) পাঠক। পড়শীর সঙ্গে এদের নাড়ির যোগাযোগটা অন্ততঃ এখনও স্থাপিত হয়নি। কোন একটা ওয়েবলিংক আকর্ষনীয় মনে হলে ক্লিক করছেন, ভালো না লাগলে একটু পরেই হারিয়ে যাচ্ছেন দূরের কোন ভিনগ্রহে। এটা শুধু পড়শীর সমস্যা নয়,টা অন্তর্জালের বাস্তবতা। পাঠকদের ধরে রাখা বা একজন পাঠক পত্রিকাটি আগাগোড়া পড়বেন এমন প্রত্যাশা করা দূরাশা।

পুরনো বা ছাপা পড়শীর পাঠকরা ছিলেন এক নিবিড় পড়শী পরিবারের সদস্য- বিনি সুতোর বন্ধনে এরা ছিলেন পড়শী- একে অপরের। পড়শী মেজাজ, চরিত্র, আট বছর ধরে এর নিয়মিত প্রকাশনা তৈরী করেছিল সেই নিবিড় বন্ধন- সেই লেখক-পাঠক-র্মী পরিবার। প্রবাসে বাংলা চর্চায় যারা আগ্রহী, যারা নিবেদিত তাদের নিয়েই সেই পরিবার। এদের কেউ কেউ আমাদের জানিয়েছেন ছাপা পড়শীর সেই নিবিড়তা তারা খুঁজে পাচ্ছেন না অন্তর্জালের পড়শীতে। অন্তর্জালে দ্রত আসা-যাওয়া আছে, কিন্তু ঝকঝকে কাগজে ছাপার অক্ষরে পড়শীর উষ্ণ উপস্থিতি নেই।

আমরাও সে পার্থক্যটুকু অনুভব করছি। কেমন করে পড়শীর বৈশ্বিক পাঠক পরিবারকে অন্তর্জালের বিশ্ববাঙালিকে নিবিড় বন্ধনে নিকটতর করা যায় সেই হবে আমাদের আগামী দিনের প্রচেষ্টা। শুরুতেই বলেছিলাম একটি বছর প্রকাশনার ক্ষেত্রে  তেমন লম্বা সময় নয়। এই প্রথম বছরে আমাদের বিশ্বাস, পড়শীকে আমরা অন্তর্জালের একটি রুচিশীল নিয়মিত মাসিক প্রকাশনা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছি। পরবর্তী ধাপটি হবে বিশ্ববাঙালির স্বপ্নযাত্রায় এই পাঠকদের (এবং লেখকদের) পড়শীর প্লাটফর্মে একত্রিত করা।

সে স্বপ্নযাত্রায় সবাইকে আন্তরিক আমন্ত্র আগামী দিনগুলোতে... ...

একই সঙ্গে সবাইকে বাংলা নতুন বছরের আন্তরিক শুভ কামনা।

 

স্যান হোজে, ক্যালিফোর্নিয়া।

এপ্রিল ১৭, ২০১০।

 



 

 

মন্তব্য:
   May 13, 2010
thanks for your time and energy for porshi. we read it whenever the time permits. we like it. capt.farid ,montreal
জনারণ্য   May 12, 2010
সম্পাদক সাহেব, বিশ্ববাঙালির মুখপত্র হতে আর কতদিন বাকি? আরো দশ বছর লাগলেও খারাপ কিছু নয়। তবে লেগে থাকুন। পত্রিকা ভাল হচ্ছে। অনেক ধন্যবাদ।
এ সপ্তাহের জরীপ

প্রেসিডেন্ট ওবামা ঠিকমত দেশ চালা্চ্ছেন।

 
Code of Conduct | Advertisement Policy | Press Release | Hard Copy Archive
© Copyright 2001 Porshi. All rights reserved.