Home | About Us | Porshi Team | Porshi Patrons | Event Announcement | Contact Us
হোমপেজ পুরনো সংখ্যা: সূচীপত্র  কৌতুক  ||  ৯ম বর্ষ ২য় সংখ্যা জ্যৈষ্ঠ ১৪১৬ •  9th  year  2nd  issue  May-June  2009 পুরনো সংখ্যা
কৌতুক Download PDF version
 

কৌতুক

১.

দেশেই থাকেন ভদ্রলোক। ছেলেমেয়েরা থাকে আমেরিকায়। প্রতি বৎসরই ভদ্রলোক ও তার স্ত্রী ছেলেমেয়েদের দেখতে আসেন আমেরিকায়। মন ভরেনা তাতে। টাকা পয়ঁসা খরচ হয় অনেক। তাছাড়া বয়স বাড়ছে এখন, চলা ফেরাতেও একটু আধটু অসুবিধা হচ্ছে। সব সময়ই ভাবেন যদি বেশি করে আমেরিকায় আসতে পারতেন। এ নিয়ে গিন্নীর সাথেও কথা কাটাকাটি হয় অনেক। প্রায় প্রতিদিনই তিনি নদীর ধারে হাটতে যান এবং নদীর পাড়ে বসে বসে ভাবেন অনেক কিছূ। এক দিন হঠাৎ করেই লক্ষ্য করলেন - একটা ছোট কাঠের বাক্স ভেসে যাচ্ছে নদীর পাড়ের সামান্য একটু দূর দিয়ে। বাক্সটা একটু কাছে আসতেই তিনি কৌতুহলী হয়ে হাটু পানিতে নেমে বাক্সটা তুললেন। মরচে পড়ে গেছে বাক্সের ডালাতে। অনেক কষ্ট করে খুলে দেখেন তার ভীতরে একটা কাঁচের বাক্স। কাঁচের বাক্সটা হাতে নিতেই তিনি শুনতে পেলেন বাক্সের ভিতর থেকে শব্দ আসছে- আমাকে বাঁচান, আমাকে বাঁচান। কাঁচের বাক্স খুলতেই তার ভেতর থেকে বেরিয়ে এলো স্বর্গীয় ভাবমূর্তির এক মানুষ। তিনি বললে- তুমি আমার জীবন বাঁচিয়েছ সেজন্য আমি খুবই খুশি, এবার বল তুমি কি চাও। তোমার যে কোন একটা ইচ্ছা আমি পুরন করবো। ভদ্রলোকের তো এখন একটাই চাওয়া। সে বললো হুজুর আমার বাড়ীর নিকট থেকে আমেরিকার সানফ্রানসিসকো শহর পর্যন্ত একটা সেতু বানিয়ে দিন যাতে আমি যখন তখন ছেলেমেয়েদের দেখতে যেতে পারি। হুজুর বললেন এটা অসম্ভব, তুমি অন্য কিছু চাও। ভদ্রলোক তখন বললেন- হুজুর সারাটা জীবন আমি আমার কথা আমার স্ত্রীকে বুঝাতে পারিনা। আপনি এমন একটা ব্যবস্থা করে দিন যাতে সে আমার কথা বোঝে আর সে কি চায় আমি তা বুঝি। হুজুর গম্ভীর হয়ে গেলেন এবং বললেন- “আমি বরং তোমার আগের চাওয়াটারই চেষ্টা করি।

 

২.

এক মানসিক হাসপাতালের পেছনের রাস্তা দিয়ে ধীর গতিতে গাড়ী চালিয়ে যাচ্ছেন আর এদিক ওদিক তাকাচ্ছেন ভদ্রলোক। হঠাৎ করে তার চোখ পড়লো ওই হাসপাতালের একটা জানালার দিকে। তিনি দেখলেন জানালায় দাঁড়িয়ে এক রোগী তাকে হাত নেড়ে শুভ কামনা জানাচ্ছে। ভদ্রলোকও তাড়াতাড়ি হাত নেড়ে তার উত্তর দিলেন এবং পরক্ষণেই টের পেলেন যে তার গাড়ীর একটা চাকার হাওয়া চলে গেছে। ভদ্রলোক গাড়ীটা রাস্তার পাশে দাঁড় করিয়ে চাকা বদলানোর সব ব্যবস্থা করতে লাগলেন। প্রথমে চাকাটাকে উচু করে চারটা নাট খুলে সেগুলোকে সেই চাকার চাকতির উপর রেখে তিনি গাড়ীর পেছন থেকে বাড়তি চাকাটা আনতে গিয়েই ঘটনাটা ঘটে গেল। তার পায়ের ধাক্কায় চাকতিটা কাত হয়ে গেল আর সে ধাক্কায় নাটগুলো ঘুরতে ঘুরতে গড়িয়ে গিয়ে পড়ে গেল পাশের খোলা ম্যানহোলের ভিতরে। ভদ্রলোকের তো মাথায় বাড়ি। কি করবে এখন। গাড়িতে হেলান দিয়ে ভাবতে লাগলেন। কি করবেন ভেবে পাচ্ছেন না। আবার হঠাৎ করেই চোখ পড়লো সেই জানালার উপর। সেই রোগী তখনও দাঁড়িয়ে আছে আর সব দেখছে। সে ভদ্রলোককে জিজ্ঞেস করলো- কাছাকাছি গাড়ী মেরামতের কোন কারখানা চেনেন? ভদ্রলোক উত্তর দিলেন- হ্যাঁ চিনি, তা প্রায় আধ মাইল হবে। রোগীটা তখন বললো- আপনি এক কাজ করুন। বাকি তিনটা চাকা থেকে একটা একটা করে নাট খুলে সেই তিনটা নাট এই বদলানো চাকাতে লাগিয়ে আস্তে আস্তে কারখানা পর্যন্ত যান, কোন অসুবিধা হবে না। ভদ্রলোক শুনে তো অবাক, তাইতো এছাড়া আর কিই বা করা যেতে পারে। ভদ্রলোক আমতা আমতা করে বললেন - আপনি তো ...। রোগীটা তাকে থামিয়ে বললো, “মানসিক রোগী হতে পারি, বোকা তো আর নই।”

 

ওয়ালিউল ইসলাম,

লিভারেমার, ক্যালিফোর্নিয়া।

 

মন্তব্য:
বেবী মজুমদার   May 15, 2009
দ্বিতীয় কৌতুকটি কি 'কৌতুক' বিভাগের ভেতর পড়ে?
এ সপ্তাহের জরীপ

প্রেসিডেন্ট ওবামা ঠিকমত দেশ চালা্চ্ছেন।

 
Code of Conduct | Advertisement Policy | Press Release | Hard Copy Archive
© Copyright 2001 Porshi. All rights reserved.